মেনু নির্বাচন করুন
নোটিশ

এডিস মাশা নিয়ন্ত্রন করুন, ডেঙ্গু থেকে মুক্ত থাকুন

ফাইল

ডেঙ্গু লিফলেট ডেঙ্গু লিফলেট


ছবি


Publish Date

২০১৯-০৯-০৫

বিস্তারিত

ডেঙ্গু সম্পর্কে জানুন, সচেতন হোন
ডেঙ্গ নিয়ে আতঙ্কিত হওয়ার কিছু নেই

ডেঙ্গু কিঃ ডেঙ্গু একটি ভাইরাস জনিত রোগ। অন্যান্য ভাইরাস জ্বরের মতই এটি একটি জ্বর। ডেঙ্গু ভাইরাস নামক এক ধরনের ভাইরাস দিয়ে এ রোগ হয়ে থাকে। তাই এই ভাইরাসের নাম থেকেই এ জ্বরের নামকরণ করা হয়েছে ডেঙ্গু জ্বর। ডেঙ্গু জ্বর সাধারনত তিন ধরনের হয়ে থাকে ১. সাধারন ডেঙ্গু জ্বর (উবহমঁব ভবাবৎ) ২. রক্তক্ষরনজনিত ডেঙ্গু জ্বর (উবহমঁব যবসড়ৎৎযধমরপ ভবাবৎ) ৩. শকজনিত ডেঙ্গু জ্বর (উবহমঁব ংযড়পশ ংুহফৎড়সব)

কেন হয়ঃ ডেঙ্গু ভাইরাস বহনকারী কোন এডিস মশা কামড়ালেই এ জ্বর হয়। ডেঙ্গু জ্বরে আক্রান্ত কোন রুগীকে যদি এডিস মশা কামড়ে রক্ত চুষে নেয় তাহলে তার শরীরে ডেঙ্গু ভাইরাস প্রবেশ করে। তখন এই মশাকে আক্রান্ত (ওহভবপঃবফ) মশা বলে। তারপর ডেঙ্গু ভাইরাস গুলো মশার ভিতর বংশ বিস্তার করে এবং আস্তে আস্তে তার লাল গ্রন্তিতে চলে আসে। এতে ৪-৫ দিন সময় লাগতে পারে। তখন এই মশাকে আক্রান্তকারী (ওহভবপঃরাব) মশা বলে। অতঃপর এই মশা যখন কোন সুস্থ্য মানুষের শরীরে কামড়ে রক্ত চুষে নেয় তখন ডেঙ্গু ভাইরাসগুলো এডিস মশার চুষক নালী দিয়ে মানুষের শরীরে প্রবেশ করে। ডেঙ্গু ভাইরাস মানুষের শরীরে প্রবেশ করার পর আবারও বংশ বিস্তার করতে থাকে এবং সাধারনত ৪-৫ দিন পর থেকে লক্ষণসমুহ দেখা দেয়।

লক্ষণসমুহঃ অন্যান্য ভাইরাস জ্বারের মতই ডেঙ্গু জ্বরেও ঠান্ডা ও সর্দিজনিত সমস্যা দেখা দেয়। জ্বরের মাত্রা ১০৪-১০৫ ডিগ্রি পর্যন্ত উঠতে পারে। ২-৩ দিন পরে গায়ে লাল লাল র‌্যাশ হতে পারে। প্রচন্ড শরীর ব্যথা, গিটে ব্যথা, মাথা ব্যথা ও চোখের পিছনে ব্যথা হতে পারে। জ্বর সাধারণত ৫-৭ দিন থাকতে পারে। এরপর থেকে জ্বর ধীরে ধীরে কমতে শুরু করে। তবে এই সময়টায় নানা ধরনের জটিলতা দেখা দিতে পারে। জটিলতার লক্ষনগুলোর মধ্যে প্রধানতম লক্ষণগুলো হলো- বমি হওয়া, নাক-মুখ-মলমুত্রের পথে রক্তক্ষরন হওয়া, রক্তচাপ কমে যাওয়া, শরীরে পানি আসা বা ফুলে যাওয়া, অজ্ঞান হওয়া ইত্যাদি। উপরোক্ত লক্ষণগুলো সাধারনত রক্তক্ষরনজনিত ডেঙ্গু জ্বর (উবহমঁব যবসড়ৎৎযধমরপ ভবাবৎ) এবং শকজনিত ডেঙ্গু জ্বর (উবহমঁব ংযড়পশ ংুহফৎড়সব) এ হয়ে থাকে। উপরোক্ত লক্ষণসমুহ আসলেই ডেঙ্গুর কারনে হয়েছে কিনা তা নিশ্চিত হওয়ার জন্য পরীক্ষা নীরিক্ষা করতে হবে। জ্বর শুরু হওয়ার প্রথম ৫দিনের মধ্যে হলে ঘঝ১ ধহঃরমবহ ভড়ৎ ফবহমঁব পরীক্ষা করতে হবে। আর জ্বর ৫দিনের বেশী হলে ওমএ/ওমগ ভড়ৎ ফবহমঁব পরীক্ষা করতে হবে। এছাড়া জটিলতা বুঝার জন্য আরও কিছু পরীক্ষা করা যেতে পারে যেমন ঈইঈ, ঝএচঞ, ঈৎবধঃরহরহব, চৎড়ঃযৎড়সনরহ ঃরসব, ঝবৎঁস ধষনঁসরহ. ঝবৎঁস বষবপঃৎড়ষুঃবং বঃপ.


Share with :

Facebook Twitter